সোমবার, ৩০ মার্চ ২০২০ | ১৬ চৈত্র ১৪২৬ বঙ্গাব্দ
ঘুরে আসি

সম্ভাবনাময় পর্যটন কেন্দ্র কাঁঠালিয়ায় ছৈলার চর

নিজস্ব প্রতিবেদক
২৬ জানুয়ারি ২০২০

বিশখালী নদীর জলরাশির মধ্যে এক টুকরো সবুজ। প্রকৃতি যেন সব সৌন্দর্য এখানে উজাড় করে দিয়েছেন। নৈসর্গিক সৌন্দর্যময় এ ভূখন্ডের নাম ছৈলার চর। সুন্দরবনের মতোই প্রাকৃতিকভাবে কাঁঠালিয়ার অবহেলিত চরাঞ্চলে বেড়ে উঠেছে ছৈলা গাছ। ঝালকাঠির কাঁঠালিয়ার ছৈলার চরে সড়কপথে ভ্রমণ করা যায় না। যেকোনো প্রান্ত থেকে কাঁঠালিয়া বন্দরে নেমে নৌকা অথবা ট্রলারে যেতে হয় ছৈলার চরে।

উপকূলীয় জেলা ঝালকাঠির দক্ষিণ জনপদ কাঁঠালিয়ার বিষখালী নদীর তীরে ছৈলার চর। পর্যটনের ব্যাপক সম্ভাবনা থাকলেও রয়েছে নানা সঙ্কট। তবু সঙ্কট উপেক্ষা করেই প্রকৃতির নয়নাভিরাম ছৈলার চর পর্যটকদের মিলনমেলায় পরিণত হচ্ছে। পৃষ্ঠপোষকতা পেলে সুন্দরবনের মতোই দক্ষিণাঞ্চলের অন্যতম পর্যটনকেন্দ্র হিসেবে গড়ে উঠবে ছৈলার চর।

জানা যায়, বঙ্গোপসাগর থেকে মাত্র ৬০ কিলোমিটার দূরে কাঁঠালিয়া উপজেলার সদর ইউনিয়নের হেতালবুনিয়া মৌজায় বিষখালী নদীতে এক যুগেরও আগে ৩০.৬১ একর জমি নিয়ে জেগে উঠেছে এ বিশাল চর। যেখানে রয়েছে লক্ষাধিক ছৈলা গাছ। আর ছৈলা গাছের নাম থেকেই এ চরের নামকরণ করা হয়েছে ‘ছৈলার চর’। শীতের সময় শুকনো চরে গহীন অরণ্য। চারপাশে নদীঘেরা যেন ছৈলার বনের দ্বীপ। সেখানে ছৈলা গাছে পাখিরা বাসা বেঁধেছে। অতিথি পাখিও নিরাপদ স্থান মনে করে আশ্রয় নিয়েছে। দেশীয় পাখির সারি তো আছেই। ছৈলা ছাড়াও এখানে কেয়া, হোগল, রানা, এলি, মাদার, আরগুজিসহ বিভিন্ন প্রজাতির গাছের সমারোহ।

প্রতিবছর শীত ও শুকনো মৌসুমে ভ্রমণপিপাসুদের পদচারণায় মুখরিত থাকে ছৈলার চর। বিভিন্ন সরকারি ও বেসরকারি আয়োজনে জেলাবাসী ছুটে যাচ্ছে ছৈলার চরে। ২০১৪ সালে ছৈলার চরটি পর্যটনস্পট হিসেবে চি‎হ্নিত করেছে জেলা প্রশাসন। কিন্তু সেখানে সুপেয় পানির ব্যবস্থা এবং শৌচাগার না থাকায় পর্যটকদের পড়তে হয় বিড়ম্বনায়। তবে বিভিন্ন সুযোগ-সুবিধা তৈরি করতে পর্যটন মন্ত্রণালয়ে আবেদন করা হয়েছে।

বছর খানেক আগে উপজেলা পরিষদ ও জেলা পরিষদ থেকে ছৈলার চরকে পূর্ণাঙ্গ বিনোদনস্পটে রূপ দিতে অভ্যন্তরীণ একটি পুকুরে ঘাটলা, একটি টিউবয়েল, ৩টি শৌচাগার, একটি শেড ও একটি রান্নাঘর স্থাপন করা হয়। গত ১০ নভেম্বর বুলবুলের আঘাতে ক্ষত-বিক্ষত হয়ে তা ব্যবহারের অনুপযোগী হয়ে আছে। সমস্যা সমাধান না হওয়ায় পর্যটকরা পড়ছেন ভোগান্তিতে। শৌচাগার সঙ্কটের কারণে নারীরা দুর্ভোগ পোহাচ্ছেন।

কাঁঠালিয়া লঞ্চঘাট থেকে নৌপথে যেতে হয় ছৈলার চরে। আমুয়া বন্দর থেকেও ট্রলারে কিংবা অন্য যেকোনো নৌযানে যাওয়া যায়। সড়কপথে হেতালবুনিয়া আলিম মাদরাসার সামনে কেল্লা পর্যন্ত যাওয়া যায়। পর্যটন এলাকাকে ঘিরে ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ও রেস্ট হাউস করার দাবি জানিয়েছে স্থানীয়রা।

পর্যটক মো: মহসিন খান বলেন, ছৈলা গাছের ফল সবুজ। এর ফুলে সাদা-লাল সংমিশ্রণ রয়েছে। এই ফুলের গোড়া কেটে রাতে ভিজিয়ে রাখলে সকালে মধু জমে ফুলের গোড়ায়। উপকূলীয় অঞ্চলের কিশোর-কিশোরীদের কাছে এ ফুলের মধু বেশ প্রিয়। খোঁজ নিয়ে জানা যায়, ম্যানগ্রোভ জাতীয় এ উদ্ভিদ নদীভাঙন রোধে বিশেষ ভূমিকা রাখে। তাছাড়া সিডরের সময় উপকূলীয় অঞ্চল রক্ষায় ছৈলা গাছের বিশেষ ভূমিকা ছিল। যদিও সিডরের আঘাতে হাজার হাজার ছৈলা গাছ ভেঙে যায়।

আরেক পর্যটক ঢাকা কলেজের মাষ্টার্স পড়ুয়া ছাত্র মো: রবিউল ইসলাম বলেন, ছৈলা গাছ ম্যানগ্রোভ জাতীয় উদ্ভিদ। উপকূলীয় এলাকার নদী ও খালের পাড়ে এ গাছ বেশি জন্মায়। সাধারণত জোয়ার-ভাটার পানি থাকে এমন এলাকায় বেশি দেখা। এ উদ্ভিদটি তুলনামূলক কম লবণাক্ত মাটিতে জন্মে। এই উদ্ভিদটির শেকড় মাটির অনেক গভীর যায়। ফলে ঝড়-জলোচ্ছ্বাস ও বন্যা থেকে উপকূলীয় জনসাধারণের জানমাল রক্ষায় বিশেষ ভূমিকা রাখে এই গাছ। সুন্দরবন অঞ্চলজুড়ে এই গাছের দেখা মেলে। তবে বিশখালী ও বলেশ্বর নদের দুই পাড়েই রয়েছে অনেক ছৈলা গাছ। এই গাছের টকজাতীয় ফলটি কাঁচা, পাকা ও রান্না করা অবস্থায় খাওয়া যায়। এমন কী এ ফল দিয়ে জেলিও তৈরি করা সম্ভব। এখানে পর্যটন শিল্পের পাশাপাশি ছৈলা গাছের ওপর নির্ভর করে অনেক ধরনের খাদ্য তৈরির সম্ভাবনাও আছে।

ছৈলার চরের পর্যটক তাসীন মৃধা অনিক বলেন, সুন্দরবনের মতোই অনেক দৃষ্টিনন্দন এ চর। এখানে পর্যটনের অপার সম্ভবনা আছে। প্রকৃতির নৈসর্গিক দৃশ্য তাদের মন কেড়েছে। পর্যটকদের জন্য কিছু সুযোগ-সুবিধা করে দিলে বিনোদনের মাত্রটা আরও বাড়বে। নিরাপত্তাসহ মূল ভূখন্ডের সঙ্গে চরের সড়কপথে যোগাযোগের জন্য সেতু নির্মাণের দাবি জানাচ্ছি।

সদর ইউপি চেয়ারম্যান মো. রবিউল ইসলাম কবির সিকদার বলেন, এখানে পর্যটনের সম্ভাবনা থাকলেও এখন পর্যন্ত সরকারি কোনো ব্যবস্থাপনা গড়ে ওঠেনি। অবকাঠামোগত কিছু না থাকায় সরকার রাজস্ব পাচ্ছে না। এটি যদি পর্যটনকেন্দ্র হিসেবে গড়ে তোলা যায়, তবে সরকার রাজস্ব পাবে।

ইউএনও আকন্দ মোহাম্মদ ফয়সাল উদ্দীন বলেন, ছৈলার চরকে নিয়ে প্রশাসনের অনেক পরিকল্পনা রয়েছে। ইতোমধ্যে ট্যুরিজম বোর্ড ছৈলার চর উন্নয়নের লক্ষ্যে কোটি টাকার প্রকল্প প্রস্তাব করেছে। মন্ত্রণালয় অনুমোদন করলেই এর বাস্তবায়ন শুরু হবে।

ঝালকাঠির ডিসি মো: জোহর আলী বলেন, ছৈলার চর পর্যটন শিল্পের জন্য সম্ভাবনাময় একটি জায়গা। এখানে পর্যটকদের জন্য সুযোগ-সুবিধা বাড়াতে পর্যটন মন্ত্রণালয়ে চিঠি পাঠানো হয়েছে। বরাদ্দ পেলে ছৈলার চরকে নান্দনিকরূপে সাজানো হবে।

কক্সবাজারকে ডিজিটাল পর্যটন সুপারসিটি ঘোষণার দাবি
ভিসা ছাড়াই ৪১ দেশে ভ্রমণ করতে পারেন বাংলাদেশিরা

আপনার মতামত লিখুন