মঙ্গলবার, ০৭ ফেব্রুয়ারি ২০২৩ | ২৫ মাঘ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
মতামত

তিনি একজন শিক্ষাবিদ-দক্ষ প্রশাসক

মো. নুর নবী, লেখক ও গবেষক
২৪ নভেম্বর ২০২২
অধ্যাপক ড. এ.এস.এম. মাকসুদ কামাল

অধ্যাপক ড. এ.এস.এম. মাকসুদ কামাল

অধ্যাপক ড. এ.এস.এম. মাকসুদ কামাল স্যার প্রো-ভিসি (শিক্ষা), ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়। ১৯৬৬ সাল। ছয়দফ-ভিত্তিক স্বায়ত্তশাসনের দাবিতে পূর্ববাংলা তখন উত্তাল। বাঙালির সেই উত্তাল দিনে নভেম্বরের ২১ তারিখ লক্ষ্মীপুর জেলায় এক সম্ভ্রান্ত মুসলিম পরিবারে এ এস এম মাকসুদ কামাল-এর জন্ম। ছেষট্টি থেকে একাত্তর ছিল বাঙালির স্বায়ত্তশাসন থেকে স্বাধীনতায় উত্তরণের দুর্দান্ত সময়- যখন তিনি ছিলেন শৈষবে। কথা ছিল স্বাধীন বাংলাদেশে তাঁর কৈশোর কাটবে আনন্দ-উচ্ছাসে! স্বাধীনতার মাত্র চার বছরের মাথায় ’৭৫-এর ১৫ আগস্ট স্বাধীন বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠার স্বপ্নদ্রষ্টা জাতির জনকের নৃশংস হত্যাকাণ্ড গোটা জাতিকে স্তব্ধ করে দেয়। শৈষব থেকে কৈশোরে পদার্পণের যে দিনগুলোতে সকালে ঘুম ভাঙার পর গ্রামের নৈসর্গিক দৃশ্য, পাখির কলরব, শিশির-স্নিগ্ধ ভোরের মিস্টি ঘ্রাণ তাঁকে উল্লসিত রাখার কথা; অথচ তখন সকালের ঘুম ভাঙতো বীভৎস দুঃস্বপ্নে। সম্ভবত: এরূপ অপ্রত্যাশিত নিত্যনৈমিত্তিক ঘটনা তাঁকে দেশের প্রতি, বঙ্গবন্ধুর প্রতি গভীর ভালোবাসার অনুভূতি সৃষ্টিতে সাহায্য করেছিল।

অধ্যাপক ড. এ এস এম মাকসুদ কামাল একজন শিক্ষাবিদ এবং দক্ষ প্রশাসক। তাঁর জন্ম ও বেড়ে ওঠা রাজনৈতিক পরিবারে। রাজনৈতিক পরিবেশে বড় হলেও পারিবারিকভাবেই ছিলেন শিক্ষা-সচেতন। শিক্ষা জীবনের সকল স্তরে তিনি প্রথম বিভাগ/শ্রেণি অর্জন করেন। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভূতত্ত্ব বিভাগ থেকে তিনি ১ম

শ্রেণিতে বি.এসসি (অনার্স) এবং এম.এসসি পাশ করেন। পরবর্তীকালে তিনি নেদারল্যান্ডসের Twente University’র মহাকাশ বিজ্ঞান বিষয়ক বিখ্যাত প্রতিষ্ঠান International Institute for Geo-Information Science and Earth Observation (ITC) থেকে Applied Engineering Geology বিষয়ে ১৯৯৭ সালে মাস্টার্স ডিগ্রি এবং জাপানের Tokyo Institute of Technology থেকে Earthquake Engineering বিষয়ে ২০০৪ সালে ডক্টর অব ইঞ্জিনিয়ারিং ডিগ্রি অর্জন করেন। দেশি-বিদেশি peer-reviewed/impact factor journal-এ তাঁর পঞ্চাশোর্ধ্ব বৈজ্ঞানিক প্রবন্ধ এবং জাতীয় পর্যায়ে সরকারি-বেসরকারি বিভিন্ন সংস্থায় তাঁর প্রত্যক্ষ তত্ত্বাবধানে অসংখ্য নীতি-নির্ধারণী রিপোর্ট প্রকাশিত হয়েছে। দেশি-বিদেশি একাধিক জার্নালে Editorial বোর্ডের সদস্য হিসেবেও তিনি দায়িত্ব পালন করছেন। তিনি বিশ্বখ্যাত University College of London (UCL), UK' তে visiting  অধ্যাপক হিসেবে ২ এপ্রিল ২০২২ থেকে মার্চ ২০২৭ পর্যন্ত নিয়োগপ্রাপ্ত হয়েছেন।

অধ্যাপক ড. মাকসুদ কামাল ২০০০ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভূতত্ত্ব বিভাগে প্রভাষক পদে যোগদান করেন এবং ২০১০ সালে অধ্যাপক পদে পদোন্নতি লাভ করেন। ২০১২ সালে তিনি আর্থ এন্ড এনভায়রনমেন্টাল সায়েন্সেস অনুষদভুক্ত দুর্যোগ বিজ্ঞান ও ব্যবস্থাপনা বিভাগের প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান নিযুক্ত হন এবং ২০১৭ সাল পর্যন্ত সফলতার সাথে চেয়ারম্যানের দায়িত্ব পালন করেন। ২০১২ থেকে ২০২০ সাল পর্যন্ত তিনি আর্থ এন্ড এনভায়রনমেন্টাল সায়েন্সেস অনুষদের ডিন হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। তিনি

মাস্টারদা সূর্যসেন হলের দুই মেয়াদে প্রাধ্যক্ষের দায়িত্বও পালন করেছেন। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সিন্ডিকেট এবং সিনেট সদস্য হিসেবেও বর্তমানে দায়িত্বরত আছেন। ২০২০ সালের ২৫ জুন থেকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রো-ভিসি (শিক্ষা)-এর দায়িত্ব পালন করছেন। এছাড়া,তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিভুক্ত সাত কলেজের সমন্বয়কের দায়িত্বও পালন করছেন।

ড. কামাল ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির তিন বার সাধারণ সম্পাদক এবং চার বার সভাপতি পদে নির্বাচিত হন। তিনি বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি ফেডারেশনের মহাসচিব ছিলেন এবং একাদিক্রমে তিন বার সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। দেশে শিক্ষার মানোন্নয়ন এবং শিক্ষকদের মর্যাদা ও অধিকার প্রতিষ্ঠার জন্য তিনি সবসময় সক্রিয় ভূমিকা পালন করেছেন।

অধ্যাপক ড. মাকসুদ কামাল নগর দুর্যোগ বিশেষজ্ঞ হিসেবে UNDP, Iran এবং UNDP/CDMP, Bangladesh-এ দায়িত্ব পালনসহ সরকারের বিভিন্ন মন্ত্রণালয় এবং প্রতিষ্ঠানের বিভিন্ন প্রকল্পে কারিগরী প্রধান উপদেষ্টা/বিশেষজ্ঞ সদস্য হিসেবেও কাজ করেছেন। পৃথিবীর বিভিন্ন দেশের (Japan, China, UK ইত্যাদি) স্বনামধন্য বিশ্ববিদ্যালয়ের সাথে তাঁর সহযোগিতা ও গবেষণা প্রকল্প রয়েছে। জাতীয় গণমাধ্যমে তাঁর বিষয়ভিত্তিক লেখনী প্রকাশিত হয়ে থাকে।

ব্যক্তিগত তথ্য সুরক্ষায় ইমোর ‘ব্লক স্ক্রিনশট ফর কলস’ ফিচার
রঙ আর আলোর খেলা নিয়ে ভিভো ভি২৫ সিরিজ

আপনার মতামত লিখুন