শনিবার, ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২১ | ২ আশ্বিন ১৪২৮ বঙ্গাব্দ
ঘুরে আসি

মাওয়ায় প্রজেক্ট হিলসা

নিজস্ব প্রতিবেদক
২৮ আগস্ট ২০২১

ইলিশপ্রেমীদের জন্য সবচেয়ে পরিচিত নাম মাওয়া ঘাট। মুন্সীগঞ্জের লৌজংয়ের জায়গাটি নতুনভাবে সাড়া জাগিয়েছে সব শ্রেণির ইলিশপ্রেমীদের জন্য। যার অন্যতম কারণ 'প্রজেক্ট হিলসা'। ইলিশের আদলে তৈরি রেস্তোরাঁটি চালু হওয়ার পর থেকেই সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে চলছে আলোচনা-সমালোচনা। সাধারণ মানুষের পাশাপাশি ঢাকা থেকে মন্ত্রী, দূতাবাসের রাষ্ট্রদূতরাও ছুটছেন প্রজেক্ট হিলসায়। তবে রেস্তোরাঁটির খাবারের দাম, সার্ভিস চার্জ, ভ্যাট ও পরিস্কার-পরিচ্ছন্নতা নিয়ে রয়েছে নানা প্রশ্ন। পদ্মাপাড়ের জেলা মুন্সীগঞ্জের মাওয়া শিমুলিয়া ঘাটে এই ইলিশের স্বাদ উপভোগে ভোজনরসিকদের ভিড় হরহামেশা লেগেই থাকে। নান্দনিক স্থাপনাটিকে ঘিরে একদিকে বেড়েছে এলাকার সৌন্দর্য, অন্যদিকে পরিণত হয়েছে বিনোদনের নতুন স্পটে। নতুন এ আয়োজন দেখতে রাজধানী ঢাকাসহ দূর-দূরান্ত থেকে প্রতিদিন ছুটে আসছে হাজারো মানুষ। চলতি বছরের ২৬ মে থেকে চালু হয়েছে প্রজেক্ট হিলসা রেস্তোরাঁটি।

প্রজেক্ট হিলসার মূল আকর্ষণ হলো, এখানে খেতে বসলে মনে হবে যেন ইলিশের পেটের ভেতরে বসেই ইলিশ খাওয়া। পদ্মার তাজা ইলিশ দিয়েই এখানে চলে অতিথি আপ্যায়ন। আবার কেজি হিসেবে বিক্রি করা হয় ইলিশ। দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে ওই রেস্তোরাঁয় ছুটে আসে শত শত মানুষ। তাদের মধ্যে রাজধানী ঢাকা থেকেই ছুটে এসেছেন অধিকাংশ মানুষ। খাবারের পাশাপাশি সেলফি তোলা নিয়ে ব্যস্ত সময় পার করছেন তারা। ওই রেস্তোরাঁয় রাখা হয়েছে শিশুদের জন্য বিভিন্ন ইনডোর-মোটরবাইক রাইড খেলাও। রেস্তোরাঁর ভেতর সুপরিকল্পিতভাবে ফার্নিচারে সাজানো হয়েছে। রেস্তোরাঁর সামনে ও পেছনে রয়েছে বিশাল গাড়ি পার্কিংয়ের ব্যবস্থা। এখানে একসঙ্গে তিনশর বেশি অতিথি খেতে পারবেন। ক্রেতাদের সার্ভিসের জন্য রয়েছে ৮০ জন স্টাফ। রয়েছে ফ্রি গাড়ি পার্কিংয়ের সুব্যবস্থা। ইলিশের আইটেম ছাড়াও তাদের রয়েছে ইন্ডিয়ান, থাই অ্যান্ড চায়নিজ ও কন্টিনেন্টাল ফুড।

যেভাবে যাবেন : ঢাকার মিরপুর-১০, ফার্মগেট, শাহবাগ থেকে রয়েছে স্বাধীন পরিবহন। এ ছাড়া ঢাকার গুলিস্তান থেকে সারাদিনই পাবেন মাওয়া যাওয়ার বাস ইলিশ, গাঙচিল, বিআরটিসির এসি বাস। যাত্রাবাড়ী থেকেও বাসযোগে আসতে পারবেন। 

ইলিশের বাড়ি চাঁদপুর
নৈসর্গিক প্রিন্সেস আইল্যান্ডস

আপনার মতামত লিখুন