বুধবার, ২৮ জুলাই ২০২১ | ১৩ শ্রাবণ ১৪২৮ বঙ্গাব্দ
সীমানার ওপারে

সিউল আন্তর্জাতিক পর্যটন মেলায় বাংলাদেশ দূতাবাস

নিজস্ব প্রতিবেদক
২৯ জুন ২০২১

বাংলাদেশ দূতাবাস গত ২৪-২৭ জুন ২০২১ তারিখে, সিউলের কনভেনশন এ্যান্ড এক্সিবিশন সেন্টারে অনুষ্ঠিত, সিউল ইন্টারন্যাশনাল টুরিজম ফেয়ার (SITF)-এ সক্রিয়ভাবে অংশগ্রহণ করে। সিটিফ দক্ষিণ কোরিয়ার সর্ববৃহৎ আন্তর্জাতিক পর্যটন মেলা।

২০১২ সাল থেকে মেলায় বাংলাদেশ নিয়মিতভাবে ও সক্রিয়ভাবে অংশগ্রহণ করে আসছে। কিন্তু, কোভিড-১৯ মহামারীর কারণে বেসামরিক বিমান পরিবহণ ও পর্যটন মন্ত্রণালয় এবছর এই মেলায় অংশ নিতে না পারায় দূতাবাস এই মেলায় বাংলাদেশকে প্রতিনিধিত্ব করে। এবার পর্যটন মেলায় ৯টি বিভিন্ন দেশের দূতাবাস ও ট্রাভেল এজেন্সিসহ মোট ২৬ টি দেশ অংশ নেয়।

গত ২৪ জুন কোরিয়া ট্রাভেল অ্যান্ড ট্যুরিজম ফেয়ারের চেয়ারম্যান মেলাটির উদ্বোধন করেন। এসময় বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত আবিদা ইসলামসহ মেলায় অংশগ্রহণকারী অন্যান্য রাষ্ট্রদূতবৃন্দ,  কিয়ংসাংবুক-দো কালচার এবং ট্যুরিজম কর্পোরেশন-এর সভাপতি,  জেজু ট্যুরিজম এসোসিয়েশনের চেয়ারম্যান, কোরিয়া ট্যুরিজম আসোসিয়েশিনের সহ-সভাপতি, KOTFA-এর প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা এবং অন্যান্য গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন।

KOTFA-এর চেয়ারম্যান মেলার বিভিন্ন প্যাভিলিয়ন এবং বুথ পরিদর্শন করেন।  তারা বাংলাদেশের বুথ পরিদর্শনে এলে রাষ্ট্রদূত আবিদা ইসলাম তাঁদেরকে স্বাগত জানান।  এসময় তিনি শিন জুং-মককে বাংলাদেশের ঐতিহ্যবাহী হস্তশিল্প সামগ্রী উপহার দেন।

তাজিকিস্তানের রাষ্ট্রদূত শারিফজোদা ইউসুফের উপস্থিতিতে রাষ্ট্রদূত আবিদা ইসলাম দূতাবাসের অন্যান্য সদস্যদের নিয়ে বাংলাদেশের বুথটি উদ্বোধন করেন। একই দিনে মেলার মূল মঞ্চে দূতাবাসের প্রথম সচিব জনাব সামুয়েল মুর্মু বাংলাদেশের আকর্ষনীয় পর্যটন স্থানসমূহ নিয়ে একটি মনোগ্রাহী উপস্থাপনা প্রদান করেন। এরপর স্থানীয় বাংলাদেশী শিল্পী আসাদুজ্জামান খানের সাবলীল ও মনোমুগ্ধকর সংগীত পরিবেশনা উপস্থিত সকল দর্শককে বিমোহিত করে।

চারদিনব্যাপী এই মেলায় প্রায় ৪০০ জন কোরিয়ান ও বিদেশী নাগরিক বাংলাদেশের বুথ পরিদর্শন করেন এবং বাংলাদেশের পর্যটন স্থানসমূহ সম্পর্কে আগ্রহ প্রদর্শন করেন। আগত দর্শনার্থীদের মধ্যে বাংলাদেশের আকর্ষনীয় পর্যটন স্থানসমূহ এবং ঐতিহ্যবাহী হস্তশিল্প সামগ্রী সংক্রান্ত লিফলেট পোস্টার, ব্রোসিয়ার ইত্যাদি বিতরণ করা হয়। এছাড়া, বাংলাদেশের আকর্ষনীয় পর্যটন স্থানসমূহ ও বাংলাদেশের সংস্কৃতি ও ও ঐতিহ্য নিয়ে নির্মিত প্রামাণ্যচিত্রসমূহ প্রদর্শন করা হয়। অনেকে বুথে প্রদর্শিত ঐতিহ্যবাহী বাংলাদেশী পোশাক পরা ম্যানিকুইনদের সাথে ছবিও তোলেন। এছাড়া, দুই বাংলাদেশী শিক্ষার্থী দর্শনার্থীদের বিনামূল্যে মেহেন্দি পরিয়ে দেন যা অনেক আগত দর্শনার্থীদের আকৃষ্ট  করে।

সর্বোচ্চ অগ্রিম করদাতা ওয়ালটন হাই-টেক ইন্ডাস্ট্রিজ
বাংলাদেশ-ভারতসহ ৬ দেশের ওপর তুরস্কের ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা

আপনার মতামত লিখুন