বৃহস্পতিবার, ২১ অক্টোবর ২০২১ | ৬ কার্তিক ১৪২৮ বঙ্গাব্দ
অর্থনীতি

পর্যটন করপোরেশনের ১২ বার

বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় চলছে সব

নিজস্ব প্রতিবেদক
১০ অক্টোবর ২০২১
বেসরকারি হোটেল-রেস্তোরাঁগুলোয় সব সময় ভোক্তাদের ভিড় থাকলেও বাংলাদেশ পর্যটন করপোরেশনের মালিকানাধীন হোটেল-রেস্তোরাঁগুলো সচরাচর ফাঁকাই থাকে। গতকাল চট্টগ্রামের হোটেল সৈকতে

বেসরকারি হোটেল-রেস্তোরাঁগুলোয় সব সময় ভোক্তাদের ভিড় থাকলেও বাংলাদেশ পর্যটন করপোরেশনের মালিকানাধীন হোটেল-রেস্তোরাঁগুলো সচরাচর ফাঁকাই থাকে। গতকাল চট্টগ্রামের হোটেল সৈকতে

পর্যটন করপোরেশনের মালিকানায় বর্তমানে সারা দেশে ১২টি বার আছে। এর মধ্যে ঢাকায় ২টি, আর বাকি ১০টি ঢাকার বাইরে। তবে একটি বারও করপোরেশনের হাতে নেই। সব কটি বারই এখন বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় পরিচালিত হচ্ছে। কোনো কোনো বার পাঁচ বছরের জন্য, কোনোটি আবার দশ বছরের জন্য লিজ দিয়েছে করপোরেশন।

বেসরকারি খাতে ছেড়ে দেওয়ার কারণ হিসেবে করপোরেশনের কর্মকর্তারা বলছেন, এসব বার থেকে মুনাফা করতে পারছে না করপোরেশন। ব্যাপক অনিয়ম ও দুর্নীতি হচ্ছে। তা ছাড়া বার পরিচালনার ক্ষেত্রে সরকারি নিয়মকানুন মানতে গিয়ে হিমশিম খেতে হয় করপোরেশনকে। সে কারণে ১২টি বারই বেসরকারি খাতে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে।

রাজধানীর শাহবাগে অবস্থিত সাকুরা রেস্তোরাঁ ও বারটি পর্যটন করপোরেশনের মালিকানাধীন। এটি ২০০২ সাল থেকে বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় পরিচালিত হচ্ছে। পর্যটন করপোরেশন এটি লিজ দেয় আসিফ ট্রেডার্স নামের একটি প্রতিষ্ঠানকে। ২০১৭ সালে প্রতিষ্ঠানটিকে আরও ১০ বছরের জন্য ৯০ লাখ টাকায় লিজ দেওয়া হয়। রাজধানীর মহাখালীতে অবস্থিত রুচিতা রেস্তোরাঁ ও বার পরিচালনার দায়িত্বে রয়েছে মেসার্স নেস্ট নামের একটি প্রতিষ্ঠান। এটি বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় ছাড়া হয় ২০১৪ সালে।

বগুড়ার পর্যটন মোটেল–সংলগ্ন বগুড়া বার ২০১৬ সাল থেকে পরিচালনা করছে মেসার্স ট্র্যান্ড স্যাটারস নামের একটি প্রতিষ্ঠান। পাঁচ বছরের জন্য এই বারটি ৪৪ লাখ টাকায় লিজ দেওয়া হয়েছে। রাজশাহী মোটেল–সংলগ্ন রাজশাহী বার বছরে ২০ লাখ ৭০ হাজার টাকার লিজে পরিচালনা করছে মেসার্স সুবর্ণা নামের একটি প্রতিষ্ঠান।

বাগেরহাটের মোংলা চত্বরে অবস্থিত বারটি পরিচালনা করছে বেসরকারি প্রতিষ্ঠান মেসার্স হোসেন চৌধুরী। সেটি পাঁচ বছরের জন্য ১৮ লাখ ৩২ হাজার টাকায় লিজ দেওয়া হয়েছে।

সিলেট পর্যটন মোটেল চত্বরে নির্মিত বারটি বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় পরিচালনার জন্য মেসার্স এস এ এস ট্রেডার্স নামের একটি প্রতিষ্ঠানকে লিজ দেওয়া হয়েছে।

বাংলাদেশ পর্যটন করপোরেশনের মালিকানায় আরেকটি বার হলো মেরী এন্ডারসন ভাসমান রেস্তোরাঁ ও বার। এটি নারায়ণগঞ্জের পাগলায় অবস্থিত। পরিচালনা করছে মেসার্স সোনারগাঁও ট্যুরিজম লিমিটেড। প্রতিষ্ঠানটির সঙ্গে ২০১৭ সালে চুক্তি করে করপোরেশন।

চট্টগ্রামের ভাটিয়ারীতে গলফ ক্লাব বার পরিচালিত হচ্ছে ভাটিয়ারী গলফ ক্লাবের মাধ্যমে। চট্টগ্রামের মোটেল সৈকত চত্বরে নির্মিত রেস্তোরাঁ ও বার পরিচালনা করছে মেসার্স সুবর্ণা এন্টারপ্রাইজ। বার্ষিক ৪৬ লাখ ৬০ হাজার টাকায় প্রতিষ্ঠানটিকে পাঁচ বছরের জন্য ওই বার লিজ দেওয়া হয়েছে।

৬৬১ কোটি টাকার দুই প্রকল্প এখন ঝুলছে
১৫ অক্টোবর থেকে ভারতে পর্যটকদের প্রবেশ শুরু

আপনার মতামত লিখুন