শুক্রবার, ১২ আগস্ট ২০২২ | ২৭ শ্রাবণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
অর্থনীতি

রপ্তানীকে বেশি গুরুত্ব দিচ্ছে ভিসতা

নিজস্ব প্রতিবেদক
০৪ এপ্রিল ২০২২
উদয় হাকিম

উদয় হাকিম

কোয়ালিটি দিয়ে ক্রেতাদের মন জয় করতে চায় নতুন বাংলাদেশী ব্র্যান্ড ভিসতা। খুব অল্প সময়ের মধ্যে দেশের ইলেক্ট্রনিকসের বাজার উল্লেখযোগ্য অংশ নিজেদের করে নেয়ার পরিকল্পনা তাদের। সম্প্রতি ভিসতা ইলেকট্রনিক্স লিমিটেডে পরিচালক হিসাবে যোগ দিয়েছেন ব্র্র্যান্ড বিশেষজ্ঞ এবং ওয়ালটনের সাবেক সিনিয়র নির্বাহী পরিচালক উদয় হাকিম। রাজধানীর গুলশান-১ এ সম্প্রতি ভিসতা কার্যালয়ে প্রতিষ্ঠানের ভবিষ্যত পরিকল্পনা নিয়ে দৈনিক অধিকরণের সঙ্গে একান্তে কথা বলেন ওই মেধাবী পরিচালক।

উদয় হাকিম বলেন, বাংলাদেশে অনেকেই প্রযুক্তিপণ্য তৈরি করেন। কিন্তু মানসম্পন্ন পণ্যের অভাব রয়েছে। অনেকেই বেশি মুনাফার লোভে নিম্নমানের ইলেক্ট্রনিক্স পণ্য সরবরাহ করছে। এতে করে ভোগান্তি পোহাতে হয় ক্রেতাদের। বাহারি বিজ্ঞাপনে ওইসব নিম্নমানের পণ্য কিনে পরে ঠিকমতো সার্ভিস পান না ক্রেতারা। এ অবস্থায় ক্রেতাদের ভোগান্তি কমাতে টেকসই এবং উচ্চমানের পণ্য দিয়ে বাজারে প্রাধান্য বিস্তার করতে চায় ভিসতা। তিনি বলেন, ভিসতা শব্দের অর্থ সফলতার সিঁড়ি। ক্রেতা, উৎপাদনকারী এবং সর্বোপরি দেশ যাতে লাভবান হয় সেই লক্ষ্যে উচ্চমানের পণ্যই ভিসতার প্রথম অঙ্গীকার।

জানা গেছে, বাংলাদেশের বাজারে ভিসতা ইলেকট্রনিক্স সবার আগে এ্যান্ড্রয়েড টিভি নিয়ে এসেছে। এলসিডি, এলইডি বা স্মার্টটিভির দিন শেষ। আগামী দিনের টিভি হচ্ছে এ্যান্ড্রয়েড। উদয় হাকিম বলেন, অ্যান্ড্রয়েড টিভি হচ্ছে বড় পর্দার মোবাইল ফোন। একটি মোবাইল ফোনে যতসব সুবিধা আছে তার চেয়েও অনেক বেশি সুবিধা অ্যান্ড্রয়েড টিভিতে। ডিশ লাইন ছাড়াই দেখা যায় টিভি চ্যানেল। রয়েছে হাজার হাজার অ্যাপস সুবিধা। আগে টিভি যা দেখাতো তাই দর্শকদের দেখতে হতো। আর এখন মানুষ যা দেখতে চায় তাই দেখতে পাচ্ছে টিভিতে। তাছাড়া ফুটবল-ক্রিকেটের মতো খেলা দেখতে বড় পর্দার অ্যান্ড্রয়েড টিভির কোনো বিকল্প নেই। এরইমধ্যে অ্যান্ড্রয়েড টিভি বাজারের একটি উল্লেখযোগ্য অংশ ভিসতা নিজেদের করে নিয়েছেন বলে দাবি উদয় হাকিমের। তিনি জানান, টেলিভিশনের পর হোম অ্যাপ্লায়েন্স, এসি, স্মার্ট ফ্রিজ এবং আগামী প্রজন্মের ম্যাশ রাউটার উৎপাদনে যাবে ভিসতা। এসব পণ্য হবে উচ্চমানের এবং রপ্তানি বাজার টার্গেট করে।

তিনি জানান, কিছুদিনের মধ্যেই ইউরোপে পণ্য রপ্তানি করতে যাচ্ছে ভিসতা। প্রায় এক বছরের কিছু বেশি সময় আগে ভিসতার যাত্রা শুরু হয়। অল্প সময়ের মধ্যে ভিসতা ব্র্র্যান্ড হিসেবে পরিচিতি পেয়েছে। বর্তমানে তারা বেশি গুরুত্ব দিচ্ছে টেলিভিশনে। দেশ-বিদেশের বাজারে যেসব টেলিভিশন রয়েছে সেগুলোর চেয়ে ভিসতার মান আপগ্রেডেড। তিনি বলেন, বাজারে অনেক ব্র্যান্ডের টেলিভিশন রয়েছে যেগুলো অল্প সময়ের ব্যবধানে প্যানেল নষ্ট হয়ে যায়, ডিসপ্লেসহ নানা ধরনের সমস্যা দেখা দেয়। বেশি মুনাফার মানসিকতায় ক্রেতাদের ঠকানো হয়। এসব সমস্যা থেকে মুক্ত থাকতে চাইলে ক্রেতাদের ভিসতা টিভি কেনার পরামর্শ দেন তিনি।

জানা গেছে, উইরোপরে বাজারে ভিসতা টিভি রপ্তানির প্রক্রিয়া চলছে। উদয় হাকিম বলেন, রপ্তানি বাজারকেই তারা বেশি গুরুত্ব দিচ্ছেন। ভিসতা কোয়ানটিটি নয়, কোয়ালিটির দিকে বেশি নজর দিচ্ছে। তিনি বলেন, প্রযুক্তি পণ্যের বাজার অসীম। যতই দিন যাবে প্রযুক্তি ততই উন্নততর হবে। ভিসতার ব্যাবসায়িক পরিকল্পনা আবর্তিত হচ্ছে সময়কে ঘিরে। তিনি বলেন, ভিসতার মান অন্যদের চেয়ে ভালো হলেও দামে হবে সাশ্রয়ী।

উদয় হাকিম বলেন, গত এক মাসে দেশের বন্দর নগরী চট্টগ্রামে ভিসতার ৩২টি ডিলারশিপ তৈরি হয়েছে। বিভাগীয় শহরসহ জেলা, থানা পর্যায়ে বর্তমানে ভিসতার পণ্য পাওয়া যায়। আগামীতে উপজেলা, গ্রোথ সেন্টার পর্যায়ে ভিসতার পণ্য পাওয়া যাবে। ভিসতার চাহিদা যেভাবে বৃদ্ধি পাচ্ছে তাতে ইলেক্ট্রনিকসের বাজার দখলে অন্যতম শীর্ষস্থানে চলে যাবে বলে তার বিশ^াস। তিনি বলেন, পরিমানের দিক দিয়ে এখনই সম্ভব না হলেও কোয়ালিটির দিক দিয়ে নাম্বার ওয়ান ভিসতা।

বাংলাদেশের ইলেকট্রনিক্স পণ্যের বাজারে ব্র্র্যান্ড এবং জনসংযোগ বিশেষজ্ঞ হিসেবে ব্যাপক পরিচিতি পাওয়া উদয় হাকিম আরো বলেন, তার স্বপ্ন ছিলো উদ্যোক্তা হওয়ার। স্রষ্টা তার স্বপ্ন পূরণ করেছে। এখন তার স্বপ্ন দেশের বেকার সমস্যা সমাধানে ভূমিকা রাখা। ভিসতা যেন দেশের বেকারত্ব ঘুচাতে অবদান রাখতে পারে সে লক্ষ্যেই কাজ করছেন তারা। দিন দিন টেকনোলজির ব্যবহার বাড়ছে। ফলে অনেক বেকার যুবক, যুবতী এই শিল্পের সাথে যুক্ত হবেন। এই খাতের পরিসর বৃদ্ধি পাবে। এখানে সম্ভাবনা অফুরন্ত। তাই এই শিল্পের উন্নয়নের অপার সম্ভাবনা রয়েছে।

ভিসতার সফলতা নিয়ে শতভাগ আশাবাদ ব্যক্ত করে উদয় হাকিম জানান, ইলেকট্রক্সি সেক্টরে দেশের সবচেয়ে মেধাবী টিম এখন ভিসতায়। তিনি নিজেও ওয়ালটনের ব্র্যান্ডিং, কমিউনিকেশন এবং লিঁয়াজো টিমের নেতৃত্ব দিয়েছেন। এছাড়া ওয়ালটনের ইন্টারন্যাশনাল মার্কেটিং এবং পলিসি বিভাগের প্রধান লোকামান হোসেন আকাশ এখন ভিসতার ব্যবস্থাপনা পরিচালক। ওয়ালটনের সোর্সিং বিভাগের প্রধান শামসুল আলম আছেন ভিসতার চেয়ারম্যান হিসেবে। ওয়ালটনের প্রধান প্রকৌশলী মইনুল হক এখন ভিসতার পরিচালক। এছাড়া আরো কিছু গুরুত্বপূর্ন ব্যক্তি ভিসতায় যোগ দিতে যাচ্ছেন। তার ভাষায়, এরকম মেধাবী এবং যোগ্য টিম দেশের আর কোনো ইলেকট্রনিক্স কোম্পানিতে নেই।

উদয় হাকিম আক্ষেপ করে বলেন, অনেক শীর্ষ কোম্পানি বিভিন্ন দেশ থেকে পচা, খারাপ পণ্য বাংলাদেশে আমদানি করে নিজেদের পণ্য হিসেবে চালাচ্ছে। বাংলাদেশকে তারা ডাম্পিং স্টেশন বানাচ্ছে। এর থেকে পরিত্রাণ পেতে হলে ক্রেতাদের পণ্যমান সম্পর্কে সচেতন হতে হবে।

সরকারের অব্যাহত নীতিসহায়তার কথা উল্লেখ করে তিনি জানান, বাজেটে সরকার শিল্প খাতকে সবচেয়ে বেশি গুরুত্ব দিয়েছে। যেটি আসলে সময়ের দাবি। দশ বছরের জন্য প্রযুক্তিখাতকে শুল্ক সহায়তা দিচ্ছে। যা শিল্প বিকাশে গুরুত্বপূর্ন ভূমিকা রাখবে। ব্যাপক শিল্পায়নই পারে দেশকে দ্রুত উন্নয়নের মহাসড়কে পৌছে দিতে।

গাজীপুরের কালিয়াকৈরে বঙ্গবন্ধু হাইটেক সিটিতে ভিসতার কারখানা রয়েছে। বর্তমান কারখানার পাশেই আরো একটি কারখানা স্থাপনের উদ্যোগ চলছে। জানা গেলো, নামকরা একটি আন্তর্জাতিক ব্র্র্যান্ডের হোম অ্যাপ্লায়েন্স এবং ইলেকট্রিক ফ্যান ভিসতার কারখানায় তৈরি হবে। এ বিষয়ে শিগগিরই চুক্তি স্বাক্ষর হতে যাচ্ছে। ভিসতার পরের লক্ষ্য এয়ারকন্ডিশনার, ভিআরএফ এসি, ম্যাশ রাউটার এবং স্মার্ট রেফ্রিজারেটর উৎপাদন। ভিসতার শ্লোগান হচ্ছে এক্সিলেন্স ইন টেকনোলজি। সেরা মানের পণ্য দিয়েই ক্রেতাদের আস্থা অর্জন করতে চায় ভিসতা। দেশের ঘরে ঘরে নয়, বিশে^র ঘরে ঘরে ভিসতা পণ্য পৌঁছে দেয়াই তাদের চূড়ান্ত লক্ষ্য।

পর্যটন খাতে বাংলাদেশি বিনিয়োগ চায় শ্রীলঙ্কা
ওয়ালটন হাই-টেকে একাধিক পদে চাকরি

আপনার মতামত লিখুন