শুক্রবার, ১২ আগস্ট ২০২২ | ২৮ শ্রাবণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
অর্থনীতি

কুয়াকাটার পর্যটন ব্যবসায়ীদের মাঝে আলোর সঞ্চার পদ্মা সেতু

ডেস্ক রিপোর্ট
০৫ জুলাই ২০২২

পদ্মা সেতু দক্ষিনাঞ্চলের সঙ্গে রাজধানী ঢাকাসহ দেশের উত্তরাঞ্চলের সঙ্গে সড়ক পথে যোগাযোগ সহজ করায় এবারের ঈদ-উল-আজহার সরকারী ছুটিতে কুয়াকাটায় পর্যটকের সংখ্যা বৃদ্ধি পাবে বলে মনে করছেন পর্যটন সংশ্লিষ্টরা। জুলাই মাসের শুরু থেকেই কুয়াকাটায় ব্যাপক ভাবে বেড়েছে পর্যটকের সমাগম। এতে পর্যটকদের মানসম্মত সেবা নিশ্চিত করতে ইতোমধ্যে প্রস্ততি নিতে শুরু করেছেন পর্যটন ব্যবসায়ীরা।

কুয়াকাটা হোটেল-মোটেল ওনার্স অ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক মোতালেব শরীফ বলেন, কুয়াকাটায় ছোট-বড় ১৬০টির মতো আবাসিক হোটেল-মোটেল রয়েছে। সকল হোটেল মালিকের ব্যাংক ঋন রয়েছে। প্রত্যেক মাসেই ঋনের কিস্তির টাকা গুনতে হয়। বিগত করোনার বছর গুলোতে পর্যটন খাতের ব্যবসায়ীরা চরম সংকটে ছিল। অনেকেই ধার-দেনা করে ঋনের কিস্তি পরিশোধ করেছেন। কুয়াকাটার পর্যটন ব্যবসায়ীদের মাঝে আলোর সঞ্চার করেছে পদ্মা সেতু।

কুয়াকাটার ব্যবসায়ী মো. মিলন বলেন, পদ্মা সেতু দক্ষিনাঞ্চলের মানুষের জন্য আশীর্বাদ। কুয়াকাটা পর্যটন সংশ্লিষ্ট ব্যবসায়ীরা নতুন উদ্যমে ব্যবসা শুরু করেছি। প্রতিদিনই কুয়াকাটায় এখন পর্যটকের ভিড় রয়েছে। এতে আমাদের ভাল বিক্রী হচ্ছে।

রেষ্ট্রুরেন্ট মালিক রুমান জানান, করোনার আগে প্রতিদিন ২০-২৫ হাজার টাকা বিক্রি করতাম। করোনার লকডাউনে বিক্রী না থাকায় বয়, বেয়ারা, বাবুর্চীদেরছুটি দিয়ে দিয়েছিলাম। পদ্মা সেতু চালু হওয়ার পর থেকে হোটেলে বিক্রী বাড়ায় নতুন করে কর্মচারী রেখেছি।

ট্যুর অপারেটর অ্যাসোসিয়েশন অব কুয়াকাটা (টোয়াক) এর সভাপতি রুমান ইমতিয়াজ তুষার বলেন, প্রাকৃতিক বিপর্যয়ের কারণে গত কয়েক বছর কুয়াকাটার ব্যবসায়ীরা লোকসান গুনেছেন। পদ্মা সেতু পর্যটনর খাতের ব্যবসায়ীদের মাঝে নতুন করে আলোর সঞ্চার করেছে।

পটুয়াখালী জেলা প্রশাসক মো. কামাল হোসেন বলেন, কুয়াকাটাসহ দক্ষিনাঞ্চলের ব্যাপক উন্নয়নে মাষ্টার প্ল্যান পরিকল্পনা মন্ত্রনালয়ের অনুমোদনের অপেক্ষায় রয়েছে, সম্ভাব্যতা যাচাই চলছে কুয়াকাটা উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ গঠন নিয়ে।

ডিসেম্বরে তিন দিনের আন্তর্জাতিক পর্যটন 'বিআইটিটিই' মেলা
পর্যটন কেন্দ্রে উপচেপড়া ভিড়

আপনার মতামত লিখুন