মঙ্গলবার, ০৫ জুলাই ২০২২ | ২১ আষাঢ় ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
ঐতিহ্য

যত্রতত্র পার্কিং, বর্জ নিক্ষেপ ও ফুটপাত

বেদখলে সৌন্দর্য হারাচ্ছে পর্যটন শহর রাঙামাটি

নিজস্ব প্রতিবেদক
২৮ জানুয়ারি ২০২২

যত্রতত্র পার্কিং, বর্জ নিক্ষেপ ও ফুটপাত বেদখলে সৌন্দর্য হারাচ্ছে পর্যটন শহর রাঙামাটি। বিভিন্ন স্থানে অবৈধ স্থাপনা গড়ে তোলায় চলাচলে দূর্ভোগ পোহাচ্ছে জনসাধারণ। যেখানে সেখানে ময়লা ফেলায় বাতাসে ছড়াচ্ছে দূর্গন্ধ। প্রধান সড়কে গবাধি পশুর বিচরণ ও বেওয়ারিশ কুকুরের উৎপাত নগরবাসীকে বিড়ম্বনায় ফেলছে প্রতিনিয়ত। এতে অসন্তোষ নগরবাসী। এদিকে সুন্দর ও পরিচ্ছন্ন শহর গড়তে পৌরবাসীকে আরো সচেতন হবার আহবান জানান পৌরমেয়র।

দেশের অন্যতম পর্যটন শহর রাঙামটি। যার আয়তন ৬৫ বর্গ কিলোমিটার। ১৯৭২ সালে প্রতিষ্ঠিত রাঙামাটি পৌরসভা ক্রমন্বয়ে প্রথম শ্রেণীর পৌরসভায় উন্নীত হয়। নানামূখী সুবিধা বাড়লেও পর্যটন শহর হিসেবে এর সৌন্দর্য বাড়েনি। শহরের জনসংখ্যা বাড়লেও পর্যাপ্ত উন্নয়ন হয়নি রাস্তাঘাট ও ফুটপাতের।স্থায়ী বর্জ ব্যবস্থাপনা না থাকায় দিন দিন অপরিচ্ছন্ন হয়ে উঠছে শহর। যত্রতত্র পার্কিং ও ফুটপাতের উপর স্থাপনা রাখায় শহরের সৌন্দর্য হানির পাশাপাশি নগরবাসীর ভোগান্তিও বেড়েছে। বেওয়ারিশ কুকুর ও গবাধি পশুর বিচরণ নগরবাসীর জন্য নতুন এক বিড়ম্বনা।

নগরবাসীর অভিযোগ নির্বাচনের আগে প্রত্যেক মেয়র পর্যটন বান্ধব শহর গড়ার প্রতিশ্রুতি দিলেও দীর্ঘ দিনেও তার বাস্তব প্রতিফলন দেখা যায়নি। শহরের এমন পরিস্থিতি নিয়ে স্থানীয়রা ছাড়াও হতাশ হচ্ছেন আগত পর্যটকরা। পর্যটন বান্ধব শহর গড়তে স্থায়ী বর্জ ব্যবস্থাপনায় নতুন পরিকল্পনার কথা জানিয়ে পৌরসভার মেয়র নগরবাসীকে আরো সচেতন হওয়ার আহবান জানান।

পর্যটন শহর হিসেবে আলাদা গুরুত্ব দিয়ে রাঙামাটি পৌরসভাকে আরো আধুনিকায়নে সরকার ও পৌর কর্তপক্ষ দ্রুত উদ্যোগ নেবে এমন প্রত্যাশা রাঙামাটিবাসীর।

ব্যক্তিগত গাড়িতে বিদেশ ভ্রমণ করবেন যেভাবে
শর্ত পেরিয়ে কেউ পায়নি পর্যটনে প্রণোদনার ঋণ

আপনার মতামত লিখুন