বৃহস্পতিবার, ০৯ জুলাই ২০২০ | ২৫ আষাঢ় ১৪২৭ বঙ্গাব্দ
সীমানার ওপারে

করোনা হলে পর্যটকদের খরচ বহন করবে সাইপ্রাস

অনলাইন ডেস্ক
০১ জুন ২০২০

করোনাভাইরাসে লকডাউনের কারণে অধিকাংশ দেশের পর্যটন খাতে ধস নেমেছে। পর্যটনকে আগের অবস্থায় ফিরিয়ে আনতে অভিনব উদ্যোগ নিলো ইউরোপের দেশ সাইপ্রাস। বেড়াতে এসে কোনো পর্যটক করোনায় আক্রান্ত হলে তাদের সব খরচ বহন করবে দেশটি।

করোনার কারণে বিশ্বে দীর্ঘদিন ধরে চলা লকডাউনের ফলে বিভিন্ন দেশের অর্থনীতি নিচের দিকে নামছে। ধসে পড়া অর্থনীতিকে চাঙ্গা করতে নানা ধরনের প্যাকেজের বন্দোবস্ত করছে দেশগুলো। কদিন আগে জাপানের প্রধানমন্ত্রী শিনজো আবে ঠিক করেছেন, করোনা পরবর্তী সময়ে জাপানে বেড়াতে আসা পর্যটকদের বেশ কিছু খরচ বহন করবে সরকার নিজে। এবার একধাপ এগিয়ে গেলো সাইপ্রাস।

দেশের অর্থনীতির ১৩ শতাংশ পর্যটনের ওপর নির্ভরশীল, এ বছর লকডাউনের কারণে পর্যটন সংশ্লিষ্ট খাতে ৭০ শতাংশ রাজস্ব হারানোর শঙ্কা।এই অবস্থায় ভূমধ্যসাগরের পর্যটন কেন্দ্রগুলোতে ভবিষ্যতে পর্যটক টানতে নতুন পথে হাঁটলো সাইপ্রাস। কোনো পর্যটকের ভ্রমণের পরিকল্পনা করোনার জন্যে ক্ষতিগ্রস্ত হয়ে থাকলে তাদের সব খরচ বহন করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে সাইপ্রাস সরকার।

কোভিড-১৯ আক্রান্ত পর্যটকদের বিনামূল্যে চিকিৎসার পাশাপাশি খাবার, পানীয় দেওয়া হবে এবং তাদের সঙ্গে আসা স্বজনদের হোটেলে থাকার খরচ বহন করবে সরকার। ছটিতে থাকার সময় কোনো পর্যটক করোনায় আক্রান্ত হলে ১০০ বেডের হাসপাতালে ভর্তি করা হবে। আর তাদের সঙ্গে থাকা আত্মীয়দের রাখা হবে ৫০০ বেডের কোয়ারেন্টাইন হোটেলে।

সাইপ্রাসের ডেপুটি ট্যুরিজম মন্ত্রী সাভাস পেরদিওস বলেছেন, ‘এখানে বেড়াতে এসে যে সব পর্যটক করোনায় আক্রান্ত হবেন তাদের চিকিৎসার সব খরচ আমরা বহন করবো। তাদের পরিবারের কোয়ারেন্টিনে হোটেলে থাকার খরচ দেবো আমরা।’

তবে ফিরে যাওয়ার বিমান খরচ ও বিমানবন্দর পর্যন্ত ট্যাক্সি খরচ দেবে না সরকার। আগামী ৯ জুন থেকে এখানে ফের পর্যটন শুরু করার অনুমতি দেওয়া হবে। এরই মধ্যে সরকারের বক্তব্য লেখা চিঠি পৌঁছে গেছে বিমান সংস্থা এবং ট্যুর অপারেটরদের কাছে।

করোনায় সাইপ্রাসে এ পর্যন্ত আক্রান্ত হয়েছেন ৯৪৪ জন, মারা গেছেন ১৭ জন।

যেভাবে ব্যবসায় ফেরার প্রস্তুতি নিচ্ছে থাই পর্যটন শিল্প
সালমানের হাত খরচের টাকায় হাসি ফুটলো ৫০ পরিবারে

আপনার মতামত লিখুন